রবিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২১




টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের আসল পরীক্ষা শুরু

 ক্রিড়া প্রতিবেদকঃ সংযুক্ত আরব আমিরাত আধুনিক এক মুসলিম দেশ। এখানে প্রতিটি শহরেই যেন আলো ঝলমলে রাত। প্রায় প্রতিদিনই যেন উৎসব। বিশেষ করে দুবাই তো বিশ্বের রঙিন শহরের একটি। এখান থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে ঐতিহাসিক শারজাহ্‌ ক্রিকেট স্টেডিয়াম। সেখানেই বাংলাদেশ দল আজ নামবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের ইতিহাস বদলের লড়াইয়ে। প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা। এখানেই শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ দলের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসল লড়াই।

বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচে হেরে শঙ্কায় পড়েছিল বাংলাদেশ। তবে পরপর দুই জয়ে তা উড়িয়ে আজ বিশ্বকাপে টাইগারদের আসল লড়াই। দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বলেছিলেন এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হবে বাংলাদেশের ইতিহাস বদলের মিশন। আগের আসরগুলোতে নিজেদের জাত চেনাতে ব্যর্থ টাইগাররা এবার মুখিয়ে আছে। তাই জয়ের বিকল্প নেই। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে আসেন টাইগারদের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। জানান শ্রীলঙ্কার চেয়ে এগিয়ে তারা। তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে এবং টেস্টে দারুণ কিছু ম্যাচ খেলেছি। আমাদের ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল আছে যেখানে দক্ষ বোলারদের পাশাপাশি ভয়ঙ্কর কিছু ব্যাটার আছে। সাকিবের মতো বিশ্বমানের অলরাউন্ডার আছে আমাদের দলে।’

শারজাহ্‌কে নিজেদের ঘরের মাঠ মিরপুর শেরেবাংলার মতোই লাগছে রাসেল ডমিঙ্গোর কাছে। তিনি বলেন, ‘এখানকার কন্ডিশন আমাদেরকে সাহায্য করতে পারে। শারজাহ্‌র উইকেট অনেকটা ঢাকার উইকেটের মতোই। আশা করি কালকের (আজ) ম্যাচে তা আমাদের সাহায্য করবে। নতুন উইকেটগুলোতে রান কিছুটা কম হয়েছে। লম্বা বোলার যারা সজোরে উইকেটে আঘাত করে তারাই ভালো করেছে। সাউথ আফ্রিকার হয়ে আরও আগে আমি এখানে এসেছিলাম। আমার মনে আছে মরনে মরকেল দারুণ বল করেছিল। বল এখানে স্কিড করে চলে যায়।’

স্পিনারদের জন্য উইকেটে সাহায্য থাকবে বলেই মনে করেন ডমিঙ্গো। দলে খুব বেশি পাওয়ার হিটার না থাকায় ছোট বাউন্ডারিকে নিজেদের জন্য সহায়কই ভাবছেন তিনি। ডমিঙ্গো বলেন, ‘উইকেট বরাবর বল করলে এখানে স্পিনারদের সুযোগ আছে। এলবিডব্লিউ হয়ে যেতে পারে, তাই বোলারদের ভালো সুযোগ থাকছে। আমাদের দলে তেমন কোনো পাওয়ার হিটার নেই, তাই ছোট বাউন্ডারি আমাদের সাহায্য করবে বলেই মনে হচ্ছে। প্রথম রাউন্ডে শারজায় ম্যাচ খেলার সুবাদে শ্রীলঙ্কা এগিয়ে থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ডমিঙ্গো বলেন, ‘আমার মনে হয় না প্রথম রাউন্ড নিয়ে চিন্তা করার আর কোনো প্রয়োজন আছে। দুই দলই আগামীকাল নতুন করে শুরু করবে।’

এখন পর্যন্ত  দুই  দলের ১১ সাক্ষাতে বাংলাদেশ জিতেছে ৪টি, হেরেছে ৭টি। সর্বশেষ দুই ম্যাচে অবশ্য জয়ের সুখস্মৃতি আছে টাইগারদের। যদিও নিদাহাস ট্রফির পর টি-টোয়েন্টিতে দুই দলের দেখা হয়নি আর। তবে প্রতিপক্ষ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণাই আছে লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকার। অভিজ্ঞতা আছে তার বিপিএল-এ খেলারও। লঙ্কান অধিনায়ককে ভাবাচ্ছে বাংলাদেশের বোলিং। বিশেষ করে সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান। দু’জন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলেছেন সাতটি করে টি-টোয়েন্টি। বাঁহাতি স্পিনে সাকিব ১৪ গড়ে নিয়েছেন ১০ উইকেট। ওভার প্রতি দিয়েছেন ৬.৩৬ রান। বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজ ১০.১৮ গড়ে নিয়েছেন ১১ উইকেট, ওভার প্রতি দিয়েছেন ৮.৮৮ রান। নিদাহাস ট্রফিতে দুই দলের লড়াই জমেছিল তুমুল। এবারও শানাকা জমজমাট লড়াই হবে বলেই মনে করেন। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে শ্রীলঙ্কা দলের অধিনায়ক দাসুন শানাকা বলেন, ‘আমরা কাল (আজ) খুব ভালো ম্যাচ আশা করছি। কোয়ালিফায়ার থেকে তারা ভালোভাবেই উঠেছে। টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের দিনে আমরা কী করতে পারি, সবাই জানে। আমার মনে হয়, জমজমাট লড়াই হতে যাচ্ছে।’

অন্যদিকে লঙ্কান লেগ স্পিনার ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে নিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে চিন্তার শেষ নেই। লঙ্কান স্পিনারকে নিয়ে টাইগারদের প্রধান কোচ ডমিঙ্গো বলেন, ‘আমরা গত কয়েক মাসে হাসারাঙ্গার বিপক্ষে খেলেছি। সে কী করতে পারে তা আমাদের জানা আছে।’ এর আগে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে একবারই মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কা। ২০০৭ সালে জোহানেসবার্গে সেই ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছিল ৬৪ রানে। ১৪ বছর আগের সেই ম্যাচের একাদশ থেকে এবারের আসরে খেলছেন সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এবং মুশফিকুর রহীম। আজ এই তিনজন ছাড়াও ওপেনিংয়ে লিটন কুমার দাস ও মোহাম্মদ নাঈম শেখকে দেখা যাবে। বাছাই পর্বে শেষ দুই ম্যাচের জয়ের নায়কদের নিয়ে আজ একাদশ সাজানো হচ্ছে। তবে তাসকিন আহমেদের পরিবর্তে অপর পেসার শরীফুল ইসলামকে একাদশে দেখা যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category