রবিবার, আগস্ট ২২, ২০২১




আজ জনপ্রিয় তিন তারকার জন্মদিন

মো. নাছির উদ্দীন : জনপ্রিয় তিন তারকার জন্মদিন আজ। তারা হলেন জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু, কণ্ঠশিল্পী ডলি সায়ন্তনী এবং অভিনেত্রী রুমানা রশিদ ঈশিতা। প্রত্যেকেই নিজেদের প্রতিভা গুণে শোবিজের উজ্জ্বল নক্ষত্রে পরিণত হয়েছেন।
👀 ফজলুর রহমান বাবু
ফজলুর রহমান বাবু একাধারে তুখোড় অভিনেতা ও গায়ক হিসেবে সুপরিচিত। তবে নিজেকে অভিনেতা পরিচয় দিতেই বেশি স্বস্তিবোধ করেন তিনি। ফজলুর রহমান বাবু এ পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন। এছাড়া বেশ কিছু টেলিভিশন বিজ্ঞাপন ও চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। চলতি সপ্তাহে তার অভিনীত ‘অজ্ঞাতনামা’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। সেখানে দাপুটে এই অভিনেতার অভিনয় কাঁদিয়েছে দর্শকদের।
১৯৬০ সালের আজকের এই দিনে ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন ফজলুর রহমান বাবু। ছোটবেলার বেশিরভাগ সময় তিনি ফরিদপুরেই কাটিয়েছেন। ১৯৭৮ সালে ফরিদপুরের ‘টাউন থিয়েটার’ দিয়ে তার অভিনয়ের সঙ্গে সখ্যতা। পরবর্তিতে ‘বৈশাখী নাট্য গোষ্ঠী’তে যোগদানের মধ্য দিয়ে তিনি তার অভিনয় জীবন শুরু করেন। এরপর ১৯৮৩ সালে তিনি অগ্রণী ব্যাংকে চাকরি নেন এবং ঢাকায় বদলি হয়ে চলে আসেন। ঢাকায় এসে তিনি ‘আরণ্যক’ নাট্যদলে যোগ দেন। এই থিয়েটারে তিনি বেশ কিছু মঞ্চ নাটক করে প্রশংসিত হন। যেমন- পালা, পাথর, ময়ূর সিংহাসন।
১৯৯১ সালে কাজী নজরুল ইসলাম রচিত ‘মৃত্যু ক্ষুধা’ নাটক দিয়ে ফজলুর রহমান বাবু টিভি নাটকে অভিনয় শুরু করেন। যা বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত হয়েছিল। তার অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হলো- পাঞ্জাবীওয়ালা, ৫১ বর্তী, ৬৯, দৈনিক তোলপাড়, রঙের মানুষ, ঘরকুটুম, ব্যস্ত ডাক্তার, ঘটক পাখিভাই, হাটকুড়া প্রভৃতি।
ফজলুর রাহমান বাবুর অভিনীত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে দারুচিনি দ্বীপ, মনপুরা, বিহঙ্গ, স্বপ্ন ডানায়, বৃত্তের বাইরে, শঙ্খনাদ, মেড ইন বাংলাদেশ, অজ্ঞাতনামা, ঢাকা ড্রিমস ইত্যাদি। ২০০৪ সালে ফজলুর রাহমান বাবু ‘শঙ্খনাদ’ ছায়াছবির জন্য জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত হন। এ ছাড়াও তিনি একাধিকবার মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার, ডায়মন্ড-আরটিভি স্টার পুরস্কার, পদ্ম পুরস্কার এবং বাচসাস (বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি) পুরস্কার পেয়েছেন।
মনপুরা ছবিতে একটি গান গাওয়ার মধ্য দিয়ে ফজলুর রহমান বাবু তার আরো একটি প্রতিভার জানান দেন। ২০০৯ সালে প্রথম একক মিউজিক অ্যালবাম ‘ডুবাডুবি’ বের করেন বাবু। এছাড়াও ২০০৮ সালে ‘মনচোরা’ নামক একটি মিক্সড অ্যালবামে তিনি চারটি গান গেয়েছেন। ‘কৃষ্ণকুমারী’ ফজলুর রহমান বাবুর অপর একটি মিক্সড অ্যালবাম।
👀 রুমানা রশিদ ঈশিতা
রুমানা রশিদ ঈশিতা। ১৯৮০ সালেের ২২ আগস্ট তারও জন্মদিন। ১৯৮৬ সাল থেকে ঈশিতা অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত। নতুন কুঁড়ি টিভি অনুষ্ঠানে শিশু শিল্পী হিসেবে তিনি প্রথম খ্যাতি লাভ করেন। এরপর তিনি অভিনেত্রী ও মডেল হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তার পুরো নাম রুমানা রশিদ ঈশিতা। অভিনয় ছাড়াও তিনি নৃত্য, গান এবং লেখালেখিতেও পারদর্শী।
ঈশিতার অভিনয়ে হাতেখড়ি ছোটবেলা থেকেই। বিটিভির নতুন কুঁড়ি প্রতিযোগিতায় ‘ফালানি’ চরিত্রে তার অসাধারণ অভিনয় এখনো দর্শক হৃদয়স্পর্শ করে। ঈশিতার প্রথম অভিনীত নাটক ছিল ইমদাদুল হক মিলনের রচনায় ও ফখরুল আবেদীনের পরিচালনায় ‘দু’জনে’। এই নাটকে তিনি আফজাল হোসেন ও শান্তা ইসলামের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেন।
বড়বেলায় শহীদুল হক খানের ‘তিথি’ নাটকের তিথি চরিত্রের মধ্যদিয়ে নায়িকা হিসেবে অভিষেক হয় ঈশিতার। ‘নতুন কুঁড়ি’র সেই কুঁড়িটি আজ মস্ত বড় এক ফুলে পরিণত হয়েছে। ঈশিতা এখন পরিচালনাতেও নিজের মুন্সিয়ানা ফুটিয়ে তুলেছেন। তার প্রথম পরিচালিত নাটক ‘এক নিঝুম অরণ্যে’।
প্রকৌশলী আরিফ দৌলাকে বিয়ে করেন ঈশিতা। অভিনয়, নৃত্যশিল্পী, গায়িকা ও লেখিকা- বহুগুণে গুণান্বিতা এই অভিনেত্রী। এছাড়া তিনি চাকরি করেন চ্যানেল আইয়ে। ‘টপ মডেল’, ‘ক্ষুদে গানরাজ’ আর ‘সেরা নাচিয়ে’- তিনটি রিয়ালিটি শোর প্ল্যানিংয়ের দায়িত্বে রয়েছেন।
এ পর্যন্ত ৭ টি গানের অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে এবং ২টি বই প্রকাশিত হয়েছে ঈশিতার। বই দুইটি- স্বপ্ন ও স্বপ্নীল এবং নীরবে। এ ছাড়া ‘ভালোবাস, বাঁচো’ নামের একটি নাটক পরিচালনা করছেন তিনি। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য কয়েকটি নাটক: আপনাঘর, চক্রবলয়, দেখা, সাদাপাতায় কালো দাগ, দুজনে, তিথি, থাকা না থাকার মাঝখানে, কাগজের গল্প ইত্যাদি।
👀 ডলি সায়ন্তনী
এক সময়কার তুমুল জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী ডলি সায়ন্তনীর জন্ম ২২ আগস্ট পাবনা জেলায়। তার শৈশব কেটেছে পাবনাতেই। পরিবারে ভাই বাদশা বুলবুল, বোন পলি সায়ন্তনীও জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী। মা মনোয়ারা বেগমও যুক্ত ছিলেন গানের সঙ্গে।
১৯৯০ সালে নবম শ্রেণিতে পড়ার সময় মিল্টন খন্দকারের কথা ও সুরে সেলেক্স-এর ব্যানারে বাজারে প্রথম ডলি সায়ন্তনীর একক অ্যালবাম ‘হে যুবক’ বাজারে আসে। মাসুদ পারভেজ প্রযোজিত ‘ঘেরাও’ ছবিতে তিনি প্রথম প্লে-ব্যাক করেন। এখন পর্যন্ত প্রায় ৭০০ ছবিতে প্লে-ব্যাক করেছেন ডলি সায়ন্তনী।
দ্বৈত গানে সবচেয়ে বেশি গেয়েছেন তিনি অ্যান্ড্রু কিশোরের সঙ্গে। ডলি সায়ন্তনীর শ্রোতাসমাদৃত অ্যালবামের মধ্যে রয়েছে ‘কালিয়া’, ‘নীরব রাতে’, ‘বিরহী প্রহর’, ‘সুখে থেকো’, ‘নিতাইগঞ্জে জমছে মেলা’, ‘বাংলাদেশের মেয়ে’।
বর্তমানে ডলি সায়ন্তনী দেশ-বিদেশের স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সেই সঙ্গে নিয়মিত প্লেব্যাকও করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category