শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০




হাজীগঞ্জে দুর্বৃত্তের আগুনে পুড়ে ছাই যুবকের স্বপ্ন

স্টাফ রিপোর্টার : হাজীগঞ্জে দুর্বৃত্তের দেওয়া আগুনে পুড়ে ছাই হলো এক যুবকের স্বপ্ন। মাত্র তিন মাস পূর্বে কিস্তি ও ধার দেনা করে যুবক কামরুল গড়ে তোলেন খৈল, ভূষি, চুনসহ মাছের ও মুরগীর ফিটের দোকান। নতুন এ উদ্যাক্তার স্বপ্ন গত ১৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার আগুনে পুড়ে যায়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার ৭নং বড়কূল পশ্চিম ইউনিয়নের সাদ্রা চৌরাস্তায় ফারুক মার্কেটের ভাড়াটিয়া সাজ্জাদ এন্টারপ্রাইজে কে বা কারা শত্রুতার বসত আগুন ধরিয়ে দেয়। বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় মসজিদের ইমাম জহির দেখতে পায় সাজ্জাদ এন্টারপ্রাইজে আগুনের শিখা জ্বলছে।  ইমামের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রাসহ দোকানের মালিক এগিয়ে এসে আগুন নিয়ন্ত্রন আনতে সক্ষম হয়। এর মধ্যে দোকানে থাকা খৈল, ভূষি, সার, চুন,মাছের ও মুরগীর ফিটের বস্তা পুড়ে ছাই হয়ে যায়। প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হয় সব মিলে প্রায় ৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
খবর পেয়ে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনির হোসেন গাজীসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা আগুনে পুড়ে যাওয়া অংশ পরিদর্শন করেন এবং ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে উপজেলা প্রশাসনের নজরে অবহিত করবেন বলে আর্সস্ত করেন।
স্থানীয় বাদল, মোস্তফা, মঞ্জু ও শাহাদাত জানান, কামরুল নতুন দোকান দিয়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে দেনা পেনা করে কয়েক লক্ষ টাকার মালামাল তুলেছে। কিন্তু কে বা কারা তার দোকানকে টার্গেট করে আগুন দিয়ে সব পুড়ে ছাই করে দিয়েছে।
 ক্ষতিগ্রস্ত সাজ্জাদ এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারী ইউনিয়নের গোবিন্দপুর মুন্সী বাড়ীর নাজির আহমেদের ছেলে  উদ্যাক্তা কামরুল হাসান বলেন, আমি তিন মাস পূর্বে বিভিন্ন এনজিও থেকে কিস্তির মাধ্যমে প্রায় ৪ লক্ষ টাকার মালামাল দোকানে উত্তোলন করেছি। এর মধ্যে কয়েক লক্ষ টাকা বাকি পড়ে যায়। দোকানে থাকা মালামালের সাথে বাকি হিসাবের খাতাটাও পুড়ে যায়। আমার সব শেষ হয়ে গেল। যে বা যারাই এ শত্রুতা করেছে আল্লা যেন তার বিচার করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category