সোমবার, মার্চ ২২, ২০২১




হাইমচরে আমতলী উত্তর বগুলাকান্দি নদীর পাড় জামে মসজিদের বেহাল দশা

মোঃ জাহিদুল ইসলামঃ হাইমচর উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের আমতলী নদীর পাড় সংলগ্ন উওর বগুলাকান্দি নূরানী জামে মসজিদের বেহাল দশা।

আজ ২২ মার্চ সোমবারে সরজমিনে গিয়ে দেখাযায়
হাইমচর উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের আমতলী নদীর পাড় সংলগ্ন উওর বগুলাকান্দি নূরানী জামে মসজিদটির বেহাল দশা হয়ে পড়ে রয়েছে।

এ বিষয়ে মসজিদ কমিটি ও স্থানীয় মুসুল্লীদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন এই মসজিদটি বেশ কয়েক বছর ধরে এভাবে অবহেলিত হয়ে পড়ে আছে। আমরা জেলেদের ও স্থানীয় মুসুল্লিদের কাছ থেকে কিছু আর্থিক সহযোগিতা নিয়ে ইমাম ও মুয়াজ্জিনের বেতনটা কোনো রকম চালিয়ে নিচ্ছি। মাঝে মধ্যে এই বেতন দিতে খুব কষ্ট হয়। তাই হাইমচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারীর দৃষ্টি আকর্ষণ কামনা করছি।

এসময় মসজিদ কমিটির সভাপতি মোঃ রাজা মিয়া বেপারী বলেন এই মসজিদটি দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত হয়ে পড়ে আছে। আমরা জেলাদের ও স্থানীয় মুসুল্লীগন থেকে মাসিক কিছু টাকা তুলে মসজিদটি কোনো রকম ভাবে চালাচ্ছি। তাই আমি জেলা প্রসাশক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একটি মসজিদ ভবন নির্মান করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।

মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাদিস মিয় হাওলাদার বলেন আমাদের এই মসজিদটিতে বর্ষার সময়  হাটু সমান পানি উঠে যায়। এখানে নামাজ পড়তে এসে মুসুল্লিগন দুর্ভোগ হয়ে পড়ে।

মসজিদের প্রেস ইমাম মোঃ রুহুল আমিন বলেন আমি প্রায় ২ বছর ধরে এই মসজিদের নামাজ পড়িয়ে আসছি। এই মসজিদটিতে জুম্মার নামাজ আদায় করা হয়। এখানে প্রতি জুমায় ৩ থেকে ৪ শত মুসুল্লি নামাজ আদায় করেন।মাঝে মধ্যে মসজিদ জায়গা না থাকার কারনে বাহিরেও নামাজ আদায় করতে হয়।

স্থানীয় মুসুল্লি মোঃ সালাউদ্দিন বলেন এই মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় ছাড়াও জুম্মার নামাজ আদায় করা হয়।আমাদের মসজিদটি অবহেলিত হয়ে পড়ে আছে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মহোদয় নূর হোসেন পাটওয়ারী যদি আমাদের এই
আমতলী নদীর পাড় সংলগ্ন উওর বগুলাকান্দি নূরানী জামে মসজিদটির প্রতি সুদৃষ্ট রাখেন তাহলে হয়তো আমাদের মসজিদের একটি ভবন নির্মাণ করা সম্ভব হবে বলে আমরা আশাবাদী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category