মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০১৯




সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজারের ৭শ’তম ওরশ শুরু

 

এইচ এম ফারুক, সিলেট থেকে ফিরেঃ  সিলেটে হযরত শাহজালাল (র.) মাজারে শুরু হয়েছে দু’দিনব্যাপী ৭০০ তম বার্ষিক ওরশ। স্থানীয় ভক্ত আশেকানদের কাছে ‘বাদশার বাড়ি’ হিসেবে পরিচিত হযরত শাহজালাল (র.) মাজারে মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হয় ওরশের আনুষ্ঠানিকতা। মঙ্গলবার সকালে গিলাফ ছড়ানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয় ওরশের কার্যক্রম। নানা শ্রেণিপেশার ভক্ত আশেকানরা মাজারে গিলাফ ছড়ান। বুধবার আখেরি মোনাজাতের পর শিরণী বিতরণের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হবে ওরশ।

এদিকে ওরশ ঘিরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভক্ত আশেকানের ঢল নেমেছে। লোকে লোকারণ্য হয়ে আছে মাজার এলাকা। মুর্শিদি ও ভক্তিমূলক মিলাদ, জিকির মাধ্যমে ভক্ত আশেকানরা জমিয়ে রেখেছেন দরগা মাজার প্রাঙ্গণ।

এদিকে ওরশ উপলক্ষে সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে দরগাহ কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে পুরো মাজার এলাকায় চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে থাকবে এসএমপির চেকপোস্ট। নিরাপত্তার স্বার্থে মাজারের ভেতরে ও বাইরে স্থাপন করা হয়েছে পর্যাপ্ত ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা।

ওরশ উপলক্ষে সিলেট মহানগর পুলিশ বলেন, কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে- সেদিকে লক্ষ্য রেখে সিলেট মহানগর পুলিশ ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে। মাঠ পর্যায়ের পুলিশের পাশাপাশি মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও তৎপর থাকবেন।

এছাড়া পবিত্র ওরশ চলাকালীন আম্বরখানা থেকে চৌহাট্টা, দর্শন দেউড়ি হতে ঝর্ণারপাড়, রাজার গলি হতে মাজারের প্রধান গেইট, মিরের ময়দানস্থ হোটেল হেরিটেজ হতে ঝর্ণারপাড় রাস্তা এবং মাদ্রাসা সড়কস্থ পূবালী ব্যাংক গেইট হতে মিনার গেইট পর্যন্ত রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

এছাড়া মাজার ও তার আশপাশ এলাকায় কোনো যানবাহন পার্কিং না করার জন্য পুলিশ তথপর রয়েছে।
মাজার কর্তৃপক্ষ জানায়, এবারের ৭০০ তম ওরশ মোবারকে গিলাফ চড়ানোর পর কোরআন খানি, জিকির আজকার ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। এরপর ভোররাতে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে ওরশের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে। বুধবার সকালে শিরণি বিতরণ করা হবে।

এদিকে ভক্ত-আশেকানদের মাহমিলে আগত অতিথিদের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি আড়াই হাজার স্বেচ্ছাসেবক নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়া একটি মেডিকেল টিম, ফায়ার সার্ভিস ও বিদ্যুৎ বিভাগের টিম সার্বক্ষণিক মাজারে অবস্থান করছে।
উল্লেখ্য, ইসলাম প্রচারের জন্য হযরত শাহজালাল (রহ.) ১৩০৩ খ্রিস্টাব্দে ৩৬০ সফরসঙ্গী নিয়ে সিলেট আসেন। ১৩৪৬ খ্রিস্টাব্দের ১৯ জিলকদ তিনি ইন্তেকাল করেন। সিলেটে তিনি যে টিলায় বসবাস করতেন, সেখানেই তাকে দাফন করা হয়। তার কবরকে ঘিরেই পরে গড়ে উঠেছে মাজার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category