বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৯




শুভাগত হোমের রেকর্ডে সেমিতে শাইনপুকুর

ক্রীড়া প্রতিবেদকঃ টানা দুই জয়ে সবার আগে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ টি-টোয়েন্টির সেমিফাইনালে শাইনপুকুর। গেল আসরে প্রথম বিভাগ থেকে উঠে আসা দলটি এবারো দারুণ চমক ধরে রেখেছে। মূলত অধিনায়ক শুভাগত হোমের ব্যাটেই সেমিফাইনালে খেলা নিশ্চিত করে দলটি। প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন। গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ব্যাট হাতে রীতিমতো তাণ্ডব চালালেন শুভাগত। রেকর্ড বুকে নিজের নাম লেখালেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্রুততম টি-টোয়েন্টি ফিফটি হাঁকিয়ে। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে ১৮ বলে ৫৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন শুভাগত। আর ফিফটি ছুঁয়েছেন মাত্র ১৬ বলে।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আগের দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড ছিল মুমিনুল হকের। ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে মিরপুরে বাংলাদেশ জাতীয় দল ও ‘এ’ দলের তিন ম্যাচের চ্যালেঞ্জ টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে ‘এ’ দলের হয়ে ১৯ বলে ফিফটি করেছিলেন তিনি। শুভাগতর ঝড়ের পাশাপাশি তৌহিদ হৃদয়ের ৪১ বলে ৬৬ রানের ইনিংসে মোহামেডানের বিপক্ষে ২০ ওভারে ১৯২ রান তুলেছে শাইনপুকুর। জবাব দিতে নেমে প্রতিরোধ গড়লেও হেরে যায় মোহামেডান। রেকর্ড ফিফটি নিয়ে শুভাগত ম্যাচ শেষে বলেন, ‘আসলে চেষ্টা করি প্রতি ম্যাচেই রান করতে। কাল পরিস্থিতি ছিল এমন যে প্রতি বলে বলেই বাউন্ডারি দরকার ছিল। চেষ্টা করেছিলাম, লাকি ছিলাম হয়ে গেছে। ব্যাটে বলে ভালো লাগছিল।  আর রেকর্ডের চিন্তা তো মাঠে খেলার সময় থাকে না। আজকেও রান বাড়ানোর তাড়া ছিল। চার-পাঁচ ওভার ছিল বাকি। চেষ্টা করছিলাম বড় শট খেলার। হয়ে গেছে।
অন্যদিকে জয়ের লক্ষ্যে নেমে শুরুটা খারাপ করেনি মোহামেডানের দুই ওপেনার। তবে, অভিষেক মিত্র ১৯ ও আবদুর মজিদ ৩৩ রান করে আউট হওয়ার পর ছন্দপতন হয় দলটির। দলের ব্যাটিং ভরসা হিসেবে নামা মোহাম্মদ আশরাফুল আউট হন মাত্র ২০ বলে ২১ রান করে। বিপিএলে ব্যর্থ এই তারকা এবার ডিপিএল টি-টোয়েন্টিতেও নিজেকে প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। শেষ দিকে দলের মান বাঁচাতে লড়াই করেন ইরফান শুক্কুর। ২৯ বলে ৫২ রান করে অপরাজিত থাকলেও এড়াতে পারেন নি দলের ২২ রানের হার।
দুই রনিতে গাজীর জয়
ফতুল্লা খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে দুই রনিতে ভর করে বিকেএসপির বিপক্ষে ২৭ রানের জয় তুলে নিয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। গতকালও বৃষ্টির কারণে এই মাঠে খেলা হয় কার্টেল ওভারে। ম্যাচ নির্ধারণ হয় ১০ ওভারে। ব্যাট করতে নেমে ব্যাট হাতে গাজীর হয়ে বিপক্ষে তাণ্ডব চালায় রনি। ২ চার ও চার ছক্কায় ১৬ বলে ৪১ রান করেন এই ওপেনার। তার ব্যাটের সুবাদে মাত্র ১০ ওভারেই গাজীর সংগ্রহ দাড়ায় ১২৩ রান ৪ উইকেট হারিয়ে। জবাব দিতে নেমে শুরুটা বাজে করে বিকেএসপি। মাত্র ৬ রানেই হারায় ৩ উইকেট। মাত্র ২ ওভার বল করে পেসার আবু হায়দার রনি ২ রান খরচ করে তুলে নেন ২ উইকেট। সেখান থেকে ঝড় তোলেন আকর আলী। ২০ বলে করেন ৪৩ রান। তাকে দারুণ সঙ্গ দেন আমিনুল ইসলাম ২৪ বলে ৩৩ রান করে। যদিও তাদের নির্ধারিত ওভার শেষ হয় ৯৬ রানে চার উইকেট হারিয়ে। ম্যাচ সেরা হয়েছেন রনি তালুকদার।
টানা ২ হারে ছিটকে পড়েছে খেলাঘর
টানা দুই হারে ঢাকা প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি লীগ থেকে ছিটকে পড়েছে খেলাঘর সমাজ কল্যাণ। গতকাল তাদের ৬ উইকেটে হারিয়েছে লীগের নবাগত দল উত্তরা স্পোর্টিং ক্লাব। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ফতুল্লায় ১৭ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১০৯ রান তোলে খেলাঘর। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন রাফসান মাহমুদ। জবাব দিতে নেমে উত্তরাকে একাই জয়ের পথ দেখায় তানজিদ হাসান। এই ওপেনার ৫ চার ও ৩ ছয়ে ৫৭ বলে ৭২ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। দলের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন মিনহাজ খান। দু’জনের ব্যাটের সুবাদে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় উত্তরা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে প্রথম বিভাগ থেকে উঠে আসা দলটি দেখছে সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category