বৃহস্পতিবার, মে ১৪, ২০২০




শবে কদর পাওয়ার উপায়…

আল্লাহ তায়ালা অত্যন্ত ভালবেসে মানুষ সৃষ্টি করেছেন৷ মানুষকে জাহান্নামের আজাব থেকে মুক্তি লাভ এবং জান্নাতে উঁচু মর্যাদা লাভের জন্য ফরজ ইবাদতের পাশাপাশি নফল ইবাদতের অপার সুযোগ রেখেছেন৷ বছরে কিছু বিশেষ রজনী রয়েছে যাতে আল্লাহ পাক বান্দাদের জন্য অশেষ সুযোগ রেখেছেন৷ রমজান মাসের পবিত্র শবে কদর তেমনি এক মহিমান্বিত রজনী৷

শবে কদর রমজানের কোন রাতে হবে, তা সুনির্দিষ্ট নয়৷ তবে রাসূলুল্লাহ (সা.) এ ব্যাপারে ইঙ্গিত প্রদান করেছেন যে, শবে কদর রমজানের শেষ দশকের যে কোন বিজোড় রাতে নিহিত রয়েছে৷ আয়েশা (রা.) হতে বর্ণিত৷ তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেছেন-তোমরা রমজানের শেষ দশ দিনের বিজোড় রাতে লাইলাতুল কদর খোঁজ করো৷ (বুখারী ১ম খণ্ড, পৃ. ২৭০, হা. ন. ১৯৭২)শবে কদরে ইবাদত করায় রয়েছে অনেক নেয়ামতের সুসংবাদ৷ রাসূলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি ঈমানের অবস্থায় ও সওয়াবের নিয়তে কদরের রাতে ইবাদতে কাটাবে তার পূর্বের গুনাহ ক্ষমা করা হবে৷ (বুখারী ১ম খণ্ড, পৃ. ২৫৫, হা. ন. ১৮৬৩)

শবে কদরের ইবাদত এক হাজার মাসের ইবাদতের চেয়ে শ্রেষ্ঠত্বের ঘোষণা মহান প্রভু কুরআনে দিয়েছেন৷ আল্লাহ তায়ালা বলেন, কদরের রাত হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম৷(আল-কুরআন ৯৭:৩) অনুধাবনযোগ্য যে, আমাদের কেউ যদি প্রকৃতপক্ষে শবে কদরের রাত পেয়ে সে রাতের ইবাদতের সৌভাগ্য লাভ করতে পারি, তার আমলনামায় এক হাজার মাস ইবাদতের সাওয়াব পাওয়া যাবে ইন শা আল্লাহ৷ তাই আসুন আমরা এই পুণ্যময় রাত প্রাপ্তির আশায় রমজানের শেষ দশকের বিজোড় রাত তথা ২১, ২৩, ২৫, ২৭ এবং ২৯তম রাতে ইবাদতে মশগুল থাকি৷ আল্লাহ পাক আমাদেরকে তাওফীক দান করুন৷ আমীন৷

মো. জাফর আলী,আরবি প্রভাষক,
রামপুর আদর্শ আলিম মাদরাসা, চাঁদপুর৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category