শনিবার, ডিসেম্বর ৮, ২০১৮




বিশ্বকাপের আগেই আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ

ক্রীড়া প্রতিবেদকঃ ২০১৯ বিশ্বকাপ ঘিরে  বাংলাদেশের প্রস্তুতি অনেক আগেই শুরু হয়ে গেছে। চলছে সেরা ওয়ানডে দল বেছে নেয়ার কাজ। মাশরাফি বিন মুতর্জা, সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালদের অভিজ্ঞতার সঙ্গে তরুণ্যের শক্তি নিয়ে বিশ্বকাপের লড়াইয়ে নামবে পরিকল্পনা আঁটছে টিম ম্যানেজম্যান্ট। এবারই প্রথম বিশ্বকাপের আসরে সর্বোচ্চ নয়টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ দল। যেখানে প্রতিপক্ষ ছাড়াও  অন্যতম চ্যালেঞ্জ হবে ইংল্যান্ডের কন্ডিশন ও উইকেট।  যার সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারলে বড় বড় বাধাও টপকাতে সমস্যা হবে না টাইগারদের। আর সেই কারণেই বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপের আগেই আয়ারল্যান্ডে যাবে একটি সিরিজ খেলার জন্য। তবে গতকাল আইরিশ ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে এখানে তৃতীয় প্রতিপক্ষ হিসেবে থাকবে ওয়েস্ট ইন্ডিজও। আগামী ৫ই মে শুরু হবে এই ত্রিদেশীয় সিরিজ চলবে ১৭ তারিখ পর্যন্ত।

বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের সামনে ফের কোনো টুর্নামেন্টে ট্রফি জয়ের হাতছানিও থাকছে। তবে এই সিরিজটি আসলে তিন দলের জন্যই বিশ্বকাপের প্রস্তুতির অন্যতম অংশ। এবারের ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের আসর বসবে ৩০শে মে থেকে। তাই বলার অপেক্ষা রাখে না একেবারেই বিশ্বকাপ খেলেই প্রায় দুই মাসের সফর শেষ করেই দেশে ফিরবে টাইগাররা।

যদিও আয়ারল্যান্ড সিরিজের আগেই ৭ দিনের একটি ক্যাম্প আয়োজনের চিন্তার কথা শোনা যাচ্ছিল বাংলাদেশের পক্ষ থেকে। জানা গিয়েছিল ইংল্যান্ডে ৭ দিনের এই ক্যাম্প শেষ করেই আয়াল্যান্ড সফরে যাবে বাংলাদেশ। তবে এখন হয়তো সেই পরিকল্পনাতে পরিবর্তনও আসতে পারে। কারণ ১৭ই মে আয়ারল্যান্ড সিরিজ শেষ করে ফের ইংল্যান্ড যাবে বাংলাদেশ দল। সেখানেই নিবে বিশ্বকাপের শেষ প্রসু্ততি। ২০১৫-তে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে দারুণ সাফল্য বাংলাদেশের। এরপর গেল বছর ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়ান্স ট্রফিতে সেমিফাইনাল খেলে টাইগাররা। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্ব দল  পেয়েছিল দারুণ সাফল্য। সেই কারণেই ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে টাইগার ওপর প্রত্যাশার চাপ অনেক। তাই প্রস্তুতিতে কোনো রকম ঘাটতি রাখতে চায় না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। আয়ারল্যান্ডে সিরিজের কারণেই বিশ্বকাপের প্রায় এক মাস আগেই ইংলিশ কন্ডিশনে মানিয়ে নেয়ার সুযোগ পাচ্ছে দল। যদিও আয়ারল্যান্ডের উইকেটের সঙ্গে ইংল্যান্ডের উইকেটের খুব একটা মিল পাওয়া যাবে না বলেই ধারণা করা হচ্ছে।
অন্যদিকে আইরিশ ক্রিকেট বোর্ড ঘোষিত সূচি অনুসারে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু হবে ৫ই মে। প্রথম ম্যাচেই স্বাগতিকদের প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্বিতীয় ম্যাচ ৭ই মে বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। প্রতিটি দলই দুবার করে মুখোমুখি হবে টুর্নামেন্টে। এর মধ্যে ৯ই মে টাইগারদের প্রতিপক্ষ আইরিশরা।  এরপর ১৩ই ও ১৫ই মে ফের এই দুই দলের মুখোমুখি হবে মাশরাফির দল। টুর্নামেন্টের ফাইনালে গেলে খেলবে আরো একটি ম্যাচ। এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে জিততে পারলে বাংলাদেশের জন্য বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের স্বপ্নের একটি মহড়াও হয়ে যাবে। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ টাইগারদের জন্য আরো একটি কারণে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে থাকবে। কারণ এই দুই টুর্নামেন্ট খেলেই টাইগারদের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বিদায় জানাতে পারেন আন্তুর্জাতিক ক্রিকেটকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category