রবিবার, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯




বিতর্ক কেনো করবেন?

 আবদুল্লাহ আল নোমানঃ  আমাদের সমাজ মনে করে শিক্ষা ব্যতীত অন্য যে কোনো কাজ একজন শিক্ষার্থীর জন্যে অর্থহীন। এজন্যে তারা তথা সমাজ শিক্ষার্থীকে পড়াশোনা ব্যতীত অন্য কাজ করতে গেলে বরাবরই বাধা প্রদান করে আসছে। ধরি, শিক্ষার মান ১ এবং শিক্ষা ব্যতীত পৃথিবীতে যত কাজ আছে তার মান ০। ১ অংকটির ডানে যত ০ বসানো যায় তার মান তত বৃদ্ধি পায়। ঠিক তেমনি করে শিক্ষার পাশাপাশি সমাজ উন্নয়নে বা দক্ষতা উন্নয়নের জন্যে একজন শিক্ষার্থী যত বেশি পারদর্শিতা অর্জন করবে তার মান তত বেশি হবে। যেমন ১০<১০০<১০০০ সকল পিতা মাতার পরম চাওয়া তার সন্তান বড় হয়ে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার বা একজন ভাল শিক্ষার্থী হবে। কিন্তু কোনো পিতামাতাই মনে করেন না আমার সন্তান একজন যুক্তিবাদী মানুষ হবে। অবশ্য না চাওয়াটাই স্বাভাবিক। কারণ যুক্তিবাদী হলে তো আর মোটা অংকের টাকা তেমন হাতে আসবে না। আবার ভেবে দেখুন, যুক্তিবাদী বা স্পষ্টবাদী না হলে এসব পেশায় অবস্থান করেও সফলতা আসে না। একজন শিক্ষক যদি তার শিক্ষা শিক্ষার্থীকে বুঝাতে ব্যর্থ হন তাহলে তার শিক্ষার কোনো মূল্য থাকে না। একজন ডাক্তার যদি রোগীকে ভালোভাবে বুঝাতে ব্যর্থ হন তাহলে তার জনপ্রিয়তাও কমে যায় তথা তিনি সফল হতে ব্যর্থ হন।

সামাজিক জীবন থেকে রাষ্ট্রীয় জীবন সকল ক্ষেত্রে যুক্তি তথা যুক্তিবাদী মানুষের খুব প্রয়োজন। কারণ একজন যুক্তিবাদী মানুষ আবেগ দিয়ে নয়, বিবেক দিয়ে প্রমাণ করে।

এজন্য বিতর্কের কোনো বিকল্প নেই। বি অর্থ বিশেষ এবং তর্ক অর্থ ঝগড়া বা কথার লড়াই। আর বিতর্ক মানে কোনো সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে তত্ত্ব ও তথ্যের ভিত্তিতে যুক্তির দ্বারা প্রমাণ করার লড়াই।

এখন প্রশ্ন জাগে, আপনি কেন বিতার্কিক হবেন? তার একটাই উত্তর হতে পারে, যদি আপনি যুক্তিনির্ভর মানুষ হতে চান, মনের ভাব স্পষ্টভাবে প্রকাশ করতে চান তাহলে আপনি বিতর্কের অঙ্গনে বিতার্কিক হয়ে যান।

আমার পরিচিত এক শিক্ষকের উদাহরণ দেই। ক নামের একজন ছাত্র তার সময়ে বোর্ডে স্থান করেন ঝঝঈ তে। ঐঝঈতেও সেই ছাত্র দারুণ সফলতা অর্জন করেন বোর্ডে। ইঝঈ কোর্স সম্পন্ন করে যোগদান করেন একটি বিদ্যালয়ে। বিজ্ঞানের দারুণ যুক্তি এবং ফলাফল এত ভালো হওয়া সত্ত্বেও শিক্ষার্থীরা কেনো জানি স্যারের ক্লাসে অমনোযোগী, প্রাইভেটও পড়তে রাজি হয় না। অথচ স্যার একজন ভালো শিক্ষার্থী ছিলেন এবং ফলাফলও ভালো।

আবার অন্য একজন শিক্ষক (খ) আমার জানা মতে, ফলাফল ততোটা ভালো না। ক নামক স্যার যতটা শিক্ষা সম্পন্ন ছিলেন খ নামক শিক্ষক ততোটা ছিলেন না। কিন্তু অধিকাংশ শিক্ষার্থী খ নামক স্যারের ক্লাসে গভীর মনোযোগী এবং খ স্যারের কাছে প্রাইভেট পড়ার জন্য বলতে গেলে শিক্ষার্থীদের মাঝে একটি প্রতিযোগিতা পড়ে যায়।

লক্ষ্য করুন, ক নামক স্যার অধিক জ্ঞানসম্পন্ন হওয়া সত্ত্বেও শুধুমাত্র বুঝানোর ক্ষমতা ততটা না থাকায় শিক্ষার্থীদের কাছে প্রিয় হতে পারেন নি। অপরদিকে খ নামক স্যার শুধুমাত্র এই গুণটার জন্যে সকল শিক্ষার্থীর কাছে প্রিয় হয়েছেন। শুধুমাত্র শিক্ষকতা পেশায় নয় সকল ক্ষেত্রেই সফল হওয়ার বা প্রিয় হওয়ার একমাত্র পন্থা কঠোর পরিশ্রম এবং মনের ভাব যুক্তির সাথে উত্থাপন করা।

কী করা উচিত-

আগেই বলেছি, সফল হওয়ার জন্যে পরিশ্রমের বিকল্প নেই। সেই পরিশ্রমটা যদি হয় তথ্যের সাথে, তাহলে যুক্তিনির্ভর ব্যক্তি হওয়া খুব সহজ হয়ে যায়। প্রতিযোগিতায় বা বাস্তব জীবনে কোনো সত্যকে প্রমাণ করার জন্যে নানান তত্ত্ব এবং তথ্যের প্রয়োজন হয়ে পড়ে। তথ্য যদি ভুল হয় সত্যকে প্রমাণ করাও কঠিন হয়। আবার এটাও মনে রাখতে হবে যে, এমন তথ্য ও উদাহরণ উপস্থাপন করতে হবে যেন সেই তথ্য বা উদাহরণ সবাই জানে। নিয়মিত তথ্যের সাথে থাকতে হবে, পড়তে হবে খবরের কাগজ এবং দেখতে হবে টেলিভিশন। অন্তত খবরের কাগজের সম্পাদকীয় কলাম একটি হলেও পড়তে হবে।

সিদ্ধান্ত আপনার-

‘শিক্ষার কোন বয়স নাই, চলো সবাই’ এই সস্নোগানে আমরা সবাই জানি, হয়ত সবাই মানি না।

১। আপনি যদি শিক্ষার্থী হন, যদি নিজের জ্ঞানকে সবার মাঝে বিলিয়ে দিতে চান, যদি সকলের প্রিয় একজন স্পষ্টভাষী আদর্শ হতে চান তাহলে বিতার্কিক হয়ে যান।

২। আপনি যদি শিক্ষক হন, যদি সকল শিক্ষার্থীর প্রিয় শিক্ষক হতে চান, আদর্শ শিক্ষক হয়ে চিরকাল শিক্ষার্থীদের মনের মন্দিরে বসতে চান তাহলে যুক্তিবাদী শিক্ষক হয়ে যান তথা বিতর্কের অঙ্গনে আপনাকে স্বাগতম।

৩। আপনি যদি আইনজীবী হন, আপনার মোয়াক্কেলের কথাগুলো আপনার মাধ্যমে যদি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে চান বিতার্কিক হয়ে যান।

৪। যুক্তিবাদী জাতি গঠনে, চিন্তাশীল জাতি তৈরিতে আবেগ দিয়ে নয় সকলের উচিত বিতর্কের অঙ্গনে বিতার্কিক হওয়া। ‘জয় হক বিতর্কের, উন্মুক্ত হোক চিন্তার দরজা, বন্ধ হোক সকল অন্যায় ও অবিচার’।

লেখক : মোঃ আবদুল্লাহ আল নোমান, চ্যাম্পিয়ন বিতার্কিক এবং সহকারী শিক্ষক, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, চাঁদপুর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category