মঙ্গলবার, আগস্ট ৬, ২০১৯




ফরিদগঞ্জ দক্ষিন ইউপি নির্বাচনে ৮ নং ওয়ার্ডে  ফলাফল কারচুপি ॥ নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ

এস.এম ইকবালঃ ফরিদগঞ্জ ১৪ নং দক্ষিন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৮ নং ওয়ার্ডের ফলাফল কারচুপির অভিযোগে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থী (ক্যামেরা প্রতিক) রাবেয়া বেগম।

অভিযোগের আলোকে দেখা যায়, গত ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিত ১৪ নং ফরিদগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ৭,৮,ও ৯ নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা আসনে ক্যামরা প্রতিক নিয়ে রাবেয়া বেগম নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে।

এতে ৭নং ওয়ার্ডে ক্যামেরা প্র্রতিক ৪৪৬ ভোট পায়, নিকটতম প্রতিদন্দী মাইক প্রতিক ১৯৩ ভোট। ৯ নং ওয়ার্ডে ক্যামেরা প্রতিকে ৪৬০ ভোট , নিকটতম প্রতিদন্দী মাইক প্রতিক ২৬০ ভোট ।

উক্ত ২ কেন্দ্রে ক্যামেরা ভোট পায় ৯৬০ ভোট অপর প্রতিদন্দী মাইক পায় ৪৫৩ ভোট।

ক্যামেরা প্রতিকের প্রার্থী রাবেয়া বেগম অভিযোগ করে বলেন, ৮ নং ওয়ার্ডে ভোট গণনার সময় আমার এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়। এবং ফলাফল সীটেও আমার কোন স্বাক্ষর নেওয়া হয় নাই। কেন্দ্রে তর্ক বিতর্কের এক পর্যায়ে পুলিশ ও বিজিবি ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে ব্যালট বক্স উপজেলায় নিয়ে আসে। পরে আনুমানিক ১০ টার দিকে এসে জানতে পারলাম ক্যামরার ভোট দেখিয়েছে ১৫০। প্রতিদ্ব›দ্ধী মাইক প্রতিকের ভোট দেখানো হয়েছে ৬৯৫। উক্ত রেজাল্ট শিটে আমার ক্যামেরা মার্কার এজেন্ট ওসমান, পিতা- সফি উল্যার কোন স্বাক্ষর ছিল না। তাৎক্ষনিক ভাবে আমি নির্বাচন কমিশনারকে মৌখিক ভাবে অভিযোগ করি। তিনি আমাকে লিখিত অভিযোগ করতে বলেন। পরে আমি গত ২৮ জুলাই জেলা রিটার্নিং অফিসার, জেলা নির্বাচন কমিশনার, উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন কমিশনার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করি। তিনি আরো বলেন, ৮ নং ওয়র্ডেও কেন্দ্রটি মাইক প্রতিকের প্রার্থীর স্বামীর বাড়ি ও প্রার্থীর নিজের বাড়ি হওয়ায় অনৈতিক প্রভাব খাটিয়েছে। এমতাবস্থায় নির্বাচনী ফলাফল কারচুপি করে আমাকে পরাজিত করায় আমি উক্ত ফলাফল প্রত্যাখ্যান করছি এবং পুনরায় উক্ত ভোট গ্রহনের জোর দাবী জানাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category