বৃহস্পতিবার, মে ১৪, ২০২০




ফরিদগঞ্জে ক্রেতা ও বিক্রেতা চোর-পুলিশ খেলা খেলছে

এস.এম ইকবাল: চাঁদপুরের জেলা প্রশাসন গত ১০ মে থেকে জেলার সব শপিংমল দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। সে মোতাবেক ফরিদগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কমিটি জেলা প্রশাসনের সঙ্গে একমত পোষণ করে । কিন্তু কিছু অসাধু ব্যবসায়ী তা উপেক্ষা করে দোকান খোলা রেখে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

১৪ মে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ফরিদগঞ্জ ও গৃদকালিন্দিয়া, চান্দ্রা, রুপসা, গাজীপুর, নয়ারহাট, কালির বাজার গুরে দেখা গেছে প্রায় প্রতিটি বাজারেই কেনা কাটার উপছেপড়া ভিড় দেখা গেছে। প্রতিটি কসমেটিক্স, কাপড়ের দোকানসহ অধিকাংশ বিপণি বিতানের সামনে দাঁড়াতেই দোকানের ভিতর থেকে আওয়াজ আসছে ‘আইয়ে রে আইয়ে রে’ পুলিশ, সেনাবাহিনী। আর সঙ্গে সঙ্গেই সব দোকানের শাটার নামতে শুরু করে। মুহূর্তেই সব দোকান বন্ধ করে দোকানের বিতরে চুপি সারে বসে থাকে ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

পুলিশ আসছে এমন খবরে সবাই পালাল। আসলে পুলিশ আসেনি। যখন বুঝল এটি মিথ্যা, তখনি আবার দোকানদাররা দোকানের শাটারের এক সাইড টেনে ক্রেতা ডাকতে শুরু করে। এমন লুকোচুরি ফরিদগঞ্জের আসপাশের বাজারের নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দোকানীরা কখনও শাটার খুলে কখনও শাটার নামিয়ে লুকোচুরি করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। আর প্রতিদিন ভিড় করছে শত শত ক্রেতা। যেখানে নেই কোনো সামাজিক দূরত্বের বালাই। তাছাড়া বেশির ভাগ মানুষের মুখে নেই মাস্ক। শিশুরাও ভিড় করছে। যা অত্যন্ত ভয়ানক।

ফরিদগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কমিটির আহবায়ক অহিদুর রহমান পাটোয়ারী ও গৃদাকালিন্দিয়া বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের পাটোয়ারী বলেন, আমরা প্রসাশনের নির্দেশনা অনুযায়ী মার্কেট বন্ধের জন্য মাইকিং করেছি। প্রশাসন এ বিষয়ে নজর রাখছে। তবে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী আমারকে তোয়াক্কা না করে প্রশাসনকে বৃদ্ধা আংগুলি দেখিয়ে দোকানপাট খোলা রাখছে।

এবিষয়ে গৃদকালিন্দিয় বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাধারন সম্পাদক বলেন, বাজারে ম্যাজিষ্টেট এসেছে এবং দোকানদারদেরকে দোকান বন্ধ রাখার জন্য বলে গেলেও ম্যাজিস্টেট চলে যাওয়ার পর আবার সকল দোকানে দেদারছেই চলছে বেছাকেনা। ম্যাজিস্টেট যদি প্রতিটি দোকানি ও ক্রেতাকে জেল জরিমানা করতেন তাহলে দোকানি ও ক্রেতা ভয় পেত বলে আমি মনে করি।

এ ব্যাপারে থানার ওসি আব্দুর রকিব বলেন, আমাদের পুলিশ প্রতিটি বাজারে গিয়ে দোকানপাট বন্ধ রাখার জন্য বলে আসলেও দোকানিরা তা মানছেনা।এই বিষয়ে স্থানিয় ব্যবসায়ী কমিটি ও সচেতন জনগন জোরালো উদ্দ্যেগ নিলে হয়তো দোকানপাট বন্ধ রাখা সম্ভব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category