শুক্রবার, জানুয়ারি ১, ২০২১




নতুন বছরে তারকাদের প্রত্যাশা

বিনোদন প্রতিবেদকঃ  বিদায় নিয়েছে বিষে ভরা ২০২০। শুরু হয়েছে নতুন একটি বছর। করোনার তাণ্ডবে বিদায়ী বছরটা ছিল দিশেহারা। কর্মহীন ছিল বহু মানুষ। অন্যান্য সেক্টরের মতো যার প্রভাব পড়েছিল বিনোদন জগতেও। বিশেষ করে, করোনায় বিরাট সংকটের মধ্যে পড়েছে বাংলাদেশের শোবিজ। সেই সংকট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন তারকারা। নতুন বছরে তাদের কার কী প্রত্যাশা, চলুন জেনে আসি এক নজরে।

অশুভকে পেছনে ফেলে জীবনকে নতুন করে রাঙানোর প্রত্যাশা জয়ার

করোনাভাইরাস আমাদের অভ্যস্ত জীবনকে ভেঙে তছনছ করে দিয়েছে যেমন, ঠিক তেমনি এই মহামারির বিচ্ছিন্নতা আবার মানুষ হিসেবে নিজেকে নতুন এক দিগন্ত অতিক্রমের সুযোগ দিয়েছে। কারণ, প্রতিযোগিতাময় ইঁদুর দৌড়ে চারপাশে বা নিজেদের দিকেই কতটা ফিরে তাকানোর সুযোগ পেয়েছি আমরা?

জীবনে যে শুধু গতি নয়, মন্থরতাও প্রয়োজন আছে। এই মহামারি তা আমাদের বুঝিয়ে দিয়েছে। যাই হোক, নতুন বছরে সবার মঙ্গল কামনা করছি। বিগত বছরের সব অশুভকে পেছনে ফেলে জীবনকে আমরা সবাই নতুনভাবে রাঙাবো- এটাই প্রত্যাশা।

নতুনভাবে পথচলা ও নতুন চিন্তা করার অঙ্গীকার শাকিব খানের

নতুন বছরে সবার মঙ্গল কামনা করছি। হাসি-গান আর আনন্দে সবার নতুন বছর কাটুক। বিগত বছরের করোনার মতো অশুভকে পেছনে ফেলে আমরা সবাই যেন জীবনকে নতুনভাবে রাঙাতে পরি, নতুনভাবে পথ চলতে পারি, নতুন চিন্তা করতে পারি- এটাই প্রত্যাশা। পাশাপাশি নিজে যেন কারও অমঙ্গলের কারণ না হই, সে কামনা করছি। সবার আনন্দময় সময়ে আমিও পাশে থাকতে চাই। অংশ নিতে চাই ভালো ভালো কাজে। স্বপ্ন দেখি, ২০২১ সাল হবে চলচ্চিত্রের একটি বছর। আমার কাছে ভক্তদের প্রত্যাশা অনেক। আশা করছি, নতুন বছরে সে প্রত্যাশা পূরণ করতে পারব।

চলচ্চিত্রের সুদিন ফেরার অপেক্ষায় আরিফিন শুভ

আমরা সবাই নতুন আলোর অপেক্ষায় আছি। গত বছরের করোনার ভয়াবহতা ভুলে এ বছর জীবন হোক রঙিন। সাজুক বাহারি হাজারো ফুলে। প্রত্যেক মানুষ হয়ে উঠুক সুখ-সমৃদ্ধময়। আমার ভক্ত, সহকর্মী, সব সিনেমাপ্রেমীকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা। নতুন বছরে আমার প্রত্যাশা থাকবে চলচ্চিত্রের সুদিন ফিরে আসুক। নতুন করে ঘুরে দাঁড়াক আমাদের সিনেমা। আবারও শুটিংয়ে মুখর হোক আমাদের চিরচেনা বিনোদন অঙ্গন।

নাটক ও সিনেমার মানের উত্তরণ চান চঞ্চল চৌধুরী

প্রথমে চাই করোনার এই ভয়াবহতা কেটে যাক। ইন্ডাস্ট্রির উত্তরণ ঘটুক। আজকাল নাটক ও সিনেমার মান যেভাবে নিম্নগামী হচ্ছে, সেখান থেকেও পরিত্রাণ আসুক। স্বপ্ন দেখি আমাদের ওয়েব সিরিজ বিশ্ব প্ল্যাটফর্মে জায়গা করে নেবে। এ বছর আমার দুটি ছবি মুক্তি পাবে। গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘পাপ-পুণ্য’ ও মেজবাউর রহমান সুমনের ‘হাওয়া’। দর্শক ছবি দুটি গ্রহণ করুক এবং ভালো কিছু অর্জন হোক—সেটা মন থেকে চাই।

ক্যারিয়ারের একটা সেকেন্ডও মিস করতে চান না মাহি

একটা বছর বেকার চলে গেল। মন থেকে চাই করোনা চলে যাক। পরিত্রাণ পাই আমরা। নইলে আরেকটি বছর আমার জীবন থেকে চলে যাবে। আমার ক্যারিয়ারের একটি সেকেন্ডও লস করতে চাই না। আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই।

স্বাভাবিক জীবন চান ইমরান

আল্লাহর কাছে অশেষ শুকরিয়া, গত বছর আমাকে ও আমার পরিবারকে সুস্থ রেখেছেন। করোনা যেভাবে থাবা বসিয়েছিল, মনে হয়েছিল রেহাই পাব না। নতুন বছরেও সুস্থ থাকার জন্য সবার দোয়া চাই। আমি চাই প্রতিটি মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুক। আমরা যাঁরা শিল্পী তাঁরা গত বছরটা একদম বেকার ছিলাম। বিশেষ করে স্টেজ শো ছিল না। আশা করছি এ বছর সব ঠিক হয়ে যাবে।

কাজের মান আরও বাড়ানোর প্রত্যয় আফরান নিশোর

করোনার কারণে সাড়ে চার মাস লকডাউনে ছিলাম। তারপর করোনার মধ্যেও দর্শকের কথা আর টিভি নাটকের সঙ্গে যুক্ত সবার আর্থিক অবস্থার কথা চিন্তা করে কাজ করেছি। কাজের ধরন, মান ভালো ছিল। এসব কাজে দর্শক প্রতিক্রিয়াও অনেক বেশি পেয়েছি। নতুন বছরে শুধু আমার নয়, দর্শকেরও আমার কাছ থেকে প্রত্যাশা বেড়েছে অনেক। এ বছরে আরও ভালো গল্প ও নির্মাণে, ভালো মানের কাজ করতে হবে। এমনটিই চাওয়া।

হাসি-গান-আনন্দের মধ্যদিয়ে বছর পার করতে চান পরীমনি

গত বছর দেশের অন্যসব মানুষের মতো আমারও খুব একটা ভালো কাটেনি। করোনার মহামারি যেন এ বছরে আর প্রকট না হয়। আমরা সবাই যেন হাসি-গান-আনন্দের মধ্য দিয়ে বছরটি পার করতে পারি- এটাই প্রত্যাশা। ধর্ম-বর্ণ ভেদাভেদ ভুলে মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়াবে মানবিক দিক থেকে- এটাই চাওয়া। সবার জন্য রইল নতুন বছরের শুভেচ্ছা।

নিজেকে ভাঙার চেষ্টা অব্যাহত রাখতে চান মেহজাবীন

অভিনয় দিয়ে নিজেকে ভাঙার যে চেষ্টা, তা নতুন বছরেও অব্যাহত রাখতে চাই। কারণ, আমি মনে করি দর্শক হলো শিল্পীর প্রাণ, তাদের জন্যই ভিন্ন আঙ্গিকের কিছু কাজ করতে চাই। সব মিলিয়ে নতুন বছর সবার জন্য আনন্দদায়ক হয়ে উঠুক- এটাই আমি মনেপ্রাণে চাই।

বিদেশি সংস্কৃতির অন্ধ অনুকরণ বন্ধের পরামর্শ তানজিন তিশার

ভালো-মন্দ মিলিয়ে বিদায়ী বছরটি কেটেছে। নতুন বছরে আসুন প্রতিজ্ঞা করি, যাবতীয় অপসংস্কৃতির চর্চা, বিদেশি সংস্কৃতির অন্ধ অনুকরণ ভুলে আমরা দেশীয় সংস্কৃতি লালন করি। নিজেরা মানবিক হই। মানবকল্যাণে প্রত্যেকেই এগিয়ে আসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category