শুক্রবার, জুলাই ৩১, ২০২০




কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী মোহাম্মদ রফির মৃত্যুবার্ষিকী

মো. নাছির উদ্দীন : মোহাম্মদ রফি ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী।একসময় তিনি সমগ্র উপমহাদেশে অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যক্তি হিসেবে সঙ্গীত ভুবনে সুদীর্ঘ চার দশক সময়কাল অতিবাহিত করেন। সঙ্গীতাঙ্গনে অসামান্য অবদানের জন্য শ্রেষ্ঠ গায়ক হিসেবে জাতীয় পদক এবং ছয়বার ফিল্মফেয়ার পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন মোহাম্মদ রফি। আজ এই জনপ্রিয় ও কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পীর ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৮০ সালের আজকের এই দিনে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান মোহাম্মদ রফি।
সঙ্গীতাঙ্গনে তার অবদান অপরিসীম। যার ফলশ্রুতিতে ১৯৬৭ সালে ভারত সরকার প্রদত্ত পদ্মশ্রী সম্মানেও ভূষিত হন মোহাম্মদ রফি। প্রায় চার দশক সময়কাল ধরে সঙ্গীত জগতে থাকাকালীন তিনি ছাব্বিশ হাজারেরও অধিক চলচ্চিত্রের গানে নেপথ্য গায়ক হিসেবে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি বহুবিধ গানে অংশ নেয়ার বিশেষ ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। তন্মধ্যে শাস্ত্রীয় সঙ্গীত, দেশাত্মবোধক গান, বিরহ-বিচ্ছেদ, উচ্চ মার্গের প্রেম-ভালবাসা, কাওয়ালী, ভজন, গজলসহ বিভিন্ন গোত্রের গানে দক্ষতা ও পারদর্শিতা দেখিয়েছেন সমানভাবে। বিশেষ করে হিন্দি এবং উর্দু ভাষায় সমান দক্ষতা থাকায় তার গানগুলোতে বৈচিত্র্যতা এসেছে সমধিক।
হিন্দিসহ কোনকানি, উর্দু, ভোজপুরী, উড়িয়া, পাঞ্জাবী, বাংলা, মারাঠী, সিন্ধী, কানাড়া, গুজরাতি, তেলেগু, মাঘী, মৈথিলী, অহমীয়া ইত্যাদি ভাষায় তিনি গান গেয়েছেন। এছাড়াও গান গেয়েছেন ইংরেজি, ফার্সী, স্প্যানিশ এবং ডাচ ভাষায়।
২০১০ সালের ২৪ জুলাই টাইমস অব ইন্ডিয়া পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে তার চমকপ্রদ কণ্ঠস্বরকে বিশেষভাবে মূল্যায়িত করা হয়েছে। আমি তোমাকে ভালবাসি বা (আই লাভ ইউ) বাক্যটিকে যদি ১০১ প্রকারে গান আকারে গাইতে বলা হয়, মোহাম্মদ রফি ঐ ১০১ প্রকারে তার সবটুকুই করতে পারতেন। প্রায় চার দশকের গানের ভুবনে অসাধারণ অবদানের জন্য মোহাম্মদ রফি তাই সকল সময়ের, সকল কালের ও সকল বিষয়ের শিল্পী হিসেবে পরিগণিত হয়ে আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category