রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯




আগামীকাল সাবেক মন্ত্রী বর্ষীয়ান নেতা মরহুম অ্যাডভোকেট ছায়েদুল হকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী

 

আকতার হোসেন ভুইয়াঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর,মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক,সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ নাসিরনগর থেকে পাচঁবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য বর্ষীয়ান নেতা মরহুম অ্যাডভোকেট ছায়েদুল হকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আগামীকাল সোমবার। এ উপলক্ষে মন্ত্রীর পরিবারবর্গ সবার কাছে তার রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া চেয়েছেন।

বর্ষীয়ান নেতা এডভোকেট মোহাম্মদ ছায়েদুল হকের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ছায়েদুল হক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আজ রবিবার পূর্বভাগ পুরাতন বাজার জামে মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের খ্যাতনামা আইজীবী এডভোকেট মোহাম্মদ ছায়েদুল হক ১৯৪২ সালে ৪ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের পূর্বভাগ গ্রামে জম্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা মরহুম সুন্দর আলী। মোহাম্মদ ছায়েদুল হক ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা আন্দোলনের ঘনিষ্ট সহযোগী এবং ৬৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে ভিপি নিবার্চিত হন। ১৯৬৮ সালে এম এ (অর্থনীতি) ও ৭০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি পাস করেন।

একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেছেন। ১৯৭৩ সালে প্রথমবারের মত আওয়ামীলীগের টিকেটে নাসিরনগর আসন থেকে সংসদ সদস্য নিবার্চিত হয়েছেন। ১৯৮৬ সালের নিবার্চনে পরাজিত হয়েছেন। ১৯৯৬ ,২০০১ ও ২০০৮,২০১৪ সালের নিবার্চনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসাবে অংশগ্রহন করে সংসদ সদস্য নিবার্চিত হন। তিনি ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহন করেন।

আওয়ামীলীগের এ বর্ষীয়ান নেতা এর আগে খাদ্য,দূর্যোগ্য ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে মোহাম্মদ ছায়েদুল হক মৎস্য খাতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেন। তিনি আওয়ামীলীগের শাসনামলে নাসিরনগরে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category